[bangla_day] [english_date] [bangla_date]
ই-পেপার   [bangla_day] [english_date]

কলাপাড়ায় অভিভাবকদের সাথে আন্দোলনে শিক্ষার্থীরা
প্রকাশ: 8 November, 2018, 12:51 pm |
অনলাইন সংস্করণ

কলাপাড়ায়  অভিভাবকদের সাথে আন্দোলনে শিক্ষার্থীরা

মিলন কর্মকার রাজু, কলাপাড়া(পটুয়াখালী)।।
হুনছি আমাগো স্কুল,বাড়ি, জমি কিচ্ছু থাকবে না। বিদ্র্যুত কেন্দ্র বানানোর লাইগ্যা আমাগো গ্রামের হগল জমি লইয়া যাইবে। বাড়ি,স্কুল লইয়া গ্যালে আমরা থাকমু কই, কোনহানে পড়মু। তাই আইজ স্কুলে যাই নাই। আন্দোলনে আইছি। আমরা জমি দিমু না। স্কুল ভাঙ্গতে দিমু না। ফসলী জমি রক্ষার আন্দোলনে এসে মাথায় কাফনের কাপড় বেঁধে এভাবে প্রতিবাদ ও বিক্ষোভ করে চতুর্থ শ্রেণির ছাত্র তানজিল।
কলাপাড়ার চম্পাপুর ইউনিয়নের উত্তর দেবপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের এ ছাত্রের আর ১৭ দিন পর বার্ষিক পরীক্ষা। কিন্তু বই-খাতা ফেলে বোন কলেজ ছাত্রী হাবিবার সাথে এসেছেন স্কুল ও বসত ঘর রক্ষার আন্দোলনে। তার মতো এ আন্দোলনে উপস্থিত ১৪টি টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পাঁচ শতাধিক শিক্ষার্থী।
বৃহস্পতিবার দুপুরে পটুয়াখালীর কলাপাড়ার ধানখালী ইউনিয়ন পরিষদের সামনে তিন ফষলী জমি রক্ষার আন্দোলনে হাজার হাজার অভিভাবকদের সাথে অংশ নেয় বিভিন্ন স্কুল,কলেজ ও মাদরাসার শিক্ষার্থীরা। প্রায় পাঁচ ঘন্টা ধরে বিক্ষোভ মিছিল,মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সভা চলাকালে পটুয়াখালী জেলা প্রশাসক মতিউল ইসলাম চেীধুরীসহ জেলা উপজেলা প্রশাসনের শীর্ষ কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে উপস্থিত হলে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা রাস্তায় শুয়ে তাদের পথ আটকে জমি অধিগ্রহন বন্ধের দাবি জানান।
জানা যায়, ধানখালী ইউনিয়নে পাঁচজুনিয়া, ছৈলাবুনিয়া, নিশানবাড়িয়া ও চম্পাপুর ইউনিয়নের দেবপুর গ্রামের প্রায় এক হাজার একর জমি সেনাকল্যান সংস্থা ও আশুগঞ্জ কোম্পানী অধিগ্রহনের জন্য গ্রামবাসীদের তিন ও ছয় ধারা নোটিশ প্রদান করেছে। এ চারগ্রামে দক্ষিণ চালিতাবুনিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, মধ্য পাঁচজুনিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ধানখালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, পাঁচজুনিয়া ধানখালী হাই এ্যাটাচ প্রাথমিক বিদ্যালয়, মধ্য ধানখালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, দক্ষিণ দেবপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, দেবপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যারয়, ধানখালী মহিলা দাখিল মাদরাসা, ধানখালী আশরাফ একাডেমি, পিএন্ডডি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ধানখালী টেকনিক্যাল কলেজ, ধানখালী ডিগ্রি কলেজ ও ধানখালী ভোকেশনাল স্কুল রয়েছে।


এছাড়া প্রায় এক হাজার একর তিন ফষলী জমিও ধানখালী ও চম্পাপুর ইউনিয়নে। এ জমি অধিগ্রহন প্রক্রিয়া বন্ধ করতে গত ১৮ অক্টোবর পটুয়াখালী জেলা প্রশাসক বরাবরে স্মারকলিপি প্রদান করেন গ্রামবাসীরা। গ্রামবাসীদের স্মারকলিপির সূত্র ধরে বৃহস্পতিবার পটুয়াখালী জেলা প্রশাসক ধানখালী আসলে এ জমি অধিগ্রহন বাতিলের দাবিতে এ বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ কর্মসূচী পালন করে শিক্ষার্থীসহ চার গ্রামের হাজারো মানুষ।
দক্ষিণ দেবপুর গ্রামের সোবাহান মোল্লা বলেন তার ছেলে রাহুল ইসলাম দশম শ্রেণিতে, লিমন হোসেন য়িাস দ্বিতীয় শ্রেণিতে ও মেয়ে লামিয়া পড়শি স্বর্ণা নবম শ্রেণিতে পড়ে। মেষ বয়সে এসে যদি তার বসত ঘর, চাষের জমি বিদ্যুত কেন্দ্র নির্মানের জন্য অধিগ্রহন করে বসত ভিটা ছাড়া করে তাহলে ছেলে-মেয়ে নিয়ে কোথায় দাড়াবেন। ওদের তো শিক্ষাজীবনই শেষ হয়ে যাবে।
একই গ্রামের বশির মোল্লা জানা, তার দুই সন্তান তাওসীফ তৃতীয় শ্রেণিতে ও মেয়ে নাজনীন প্রথম শ্রেণিতে পড়ে। তার শেষ সম্বল চাষের জমিটুকুই। কৃষি ছাড়া জীবনে কোন কাজও শিখিনি। এখন যদি এই জমি অধিগ্রহন করা হয় তাহলে পথে নামা ছাড়া কোন উপায় থাকবে না। কৃষক অঅবু বকর সিদ্দিক বলেন, তার ছেলে তরিকুল ইসলাম ও মেয়ে সাবেকুন্নাহার দুজনই নবম শ্রেণিতে পড়ে। সামনে ওদের পরীক্ষা। কিন্তু জয়গা-জমি, ঘর ও স্কুল সব অধিগ্রহন হয়ে যাবে এ চিন্তায় এখন তাদের পড়ালেখায় মন নেই। শুধু চিন্তা তারা ভিটেমাটি ছাড়া হলে কোথায় যাবে, কোন স্কুলে পড়বে ।
বরিশাল হাতে আলী কলেজের অনার্স দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী ফাতেমা তুজ জোহরা ১০ দিনের ছুটিতে পাঁচজুনিয়া গ্রামের বাড়ি এসেছেন। কিন্তু বাসায় এসে তার ঘুম হারাম। এসেই শুনতে পান তাদের বসত ঘর, চাষের জমি অধিগ্রহন করা হবে। তাদের পৈত্রিক সম্পত্তি ছাড়তে হবে। তাই এ সম্পত্তি রক্ষার দাবিতে তিনিও মাথায় কাফনের কাপড় বেঁধে আন্দোলনে এসেছে। ফাতেমা জানায়, আব্বায় কৃষক। মাঠে ধান চাষ হয়,তাই ছোট বোন বুশরাত জাহান(চতুর্থ শ্রেণি) ও আমি পড়াশোনা করছি। এখন যদি আমাদের জমি সব নিয়ে যায় তাহলে তাহলে আমাদের লেখাপড়ার কি হবে? সরকারের কাছে দাবি দুটি বিদ্যুত কেন্দ্র হয়েছে এবার অন্য কোথাও বিদ্যুত কেন্দ্র নির্মান করে আমাদের বাঁচান।
আনসার উদ্দিন মোল্লা বলেন, এখানে আর কত্ োবিদ্যুত কেন্দ্র হবে। বিভিন্ন চরে হাজার হাজার একর জমি অনাবাদি পড়ে আছে অথচ তিন ফষলী এ জমি নেয়ার জন্য তাদের চাপ দেয়া হচ্ছে। তারা জীবন দিবেন তবুও এক ইঞ্চি জমি আর কোন বিদ্যুত কেন্দ্রকে দিবেন না।
ফরিদ উদ্দিন তালুকদার বলেন, কৃষি নির্ভর ৮৫ ভাগ মানুষের বেঁচে থাকার শেষ সম্বল এ জমি অধিগ্রহন করা হলে ৯৫ ভাগ ছেলে-মেয়ের লেখাপড়া বন্ধ হয়ে যাবে।
সভায় মো. আতাউর রহমান মিলন মিয়া বলেন, জমি অধিগ্রহনের কথা শুনে বেঁচে থাকার শেষ সম্বল হারানোর শঙ্কায় ইতিমধ্যে বহু মানুষ ষ্ট্রোক করে অসুস্থ্য হয়ে পড়েছে।


তিন ফষলী জমি রক্ষার দাবিতে অন্দোলনরত গ্রামবাসীদের সাথে দুপুরে ধানখালী ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে এক সভা অনুষ্ঠিত হয়। কলাপাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. তানভীর রহমানের সঞ্চালনায় সভায় বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মামুনুর রশিদ, কলাপাড়া উপজেলা চেয়ারম্যান আঃ মোতালেব তালুকদার, ধানখালী ইউপি চেয়ারম্যান রিয়াজ তালুকদার, চম্পাপুর ইউপি চেয়ারম্যান রিন্টু তালুকদার, শিক্ষানুরাগী আনসার উদ্দিন মোল্লা, সমাজকর্মী মো. আতাউর রহমান মিলন মিয়া, গ্রামবাসী মো. মোস্তফা মেহেদী, ফরিদ তালুকদার, আফজাল হোসেন ও আঃ মন্নান।
সভায় জেলা প্রশাসক মতিউল ইসলাম চেীধুরী বলেন, আগে ইংরেজি দ্বিতীয়পত্র পরীক্ষায় একটি কমন প্যারাগ্রাফ সবাই পড়েছে লোডশেডিং। বর্তমান সরকারের উন্নয়নের জোয়ারে লোডশেডিং শব্দটি এখন আর নেই। এই সরকার হলো শিক্ষা, কৃষি,শিল্প ও উন্নয়ন বান্ধব সরকার। তাই তিন ফষলী জমিতে যাতে আবার কোন বিদ্যুত কেন্দ্র নির্মান না হয় এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ কারো ক্ষতি না হয় এ বিষয়টি তিঁনি সরকারের উর্ধ্বতন মহলে অবহিত করবেন এবং হাজারো গ্রামবাসীর দাবি তুলে ধরবেন।

Spread the love




এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

সাম্প্রতিক সংবাদসমূহ

সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদকঃ দেলওয়ার হোসেন
নির্বাহী সম্পাদকঃ এস এম মোশারফ হোসেন মিন্টু
বার্তা সম্পাদকঃ
 
মোবাইল- 01711102472
 
Design & Developed by
  কলাপাড়ায় বিদ্যুত কেন্দ্র নির্মানকারী সংস্থার কর্মকর্তাদের উপর হামলা,অর্ধশত গ্রামবাসীর বিরুদ্ধে মামলা।।   “পায়রা বন্দরের মাধ্যমে পুরো বাংলাদেশকে আমরা পরিবহন সেবা দিতে চাই” নৌ-পরিবহন প্রতিমন্ত্রী   পায়রা তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রে মঙ্গলবার ৪টি আনলোডার মেশিন যুক্ত হয়েছে।। ৬৩ ভাগ কাজ সম্পন্ন   ঘুরে দাঁড়িয়েছে বন্দর   কলাপাড়ায় জমি অধিগ্রহন না করার দাবিতে কৃষক ও মুক্তিযোদ্ধাদের সংবাদ সম্মেলন   ‘পায়রা সমুদ্র বন্দর বানিজ্য সম্ভাবনার নতুন দরজা”-পটুয়াখালী চেম্বার অব কমার্সের শ্লোগান   পায়রা বন্দরে ২০২১ সালের মধ্যে বাস্তবায়ন হবে ২২ হাজার কোটির টাকার মধ্য মেয়াদী প্রকল্প   নতুন পায়রা সমুদ্রবন্দর বাংলাদেশের জন্য কতটা গুরুত্বপূর্ণ