[bangla_day] [english_date] [bangla_date]
ই-পেপার   [bangla_day] [english_date]

সিডর তান্ডবের ১১ বছর পর কলাপাড়ার বহু পরিবারের ভাগ্যে জোটেনি পুনর্বাসন
প্রকাশ: 15 November, 2018, 7:44 am |
অনলাইন সংস্করণ

সিডর তান্ডবের ১১ বছর পর কলাপাড়ার বহু পরিবারের ভাগ্যে জোটেনি পুনর্বাসন

কলাপাড়া নিউজ।।

আজ ১৫ নবেম্বর (শনিবার)। সিডর তান্ডবের ১১ বছর। প্রকৃতির বুরডোজার খ্যাত ঘুর্ণিঝড়ের ভয়াল থান্ডবের ১১ বছর পরও কলাপাড়ায় হাজার হাজার পরিবারের ভাগ্যে পুনর্বাসন জোটেনি । এসব পরিবার বেড়িবাঁধের বাইরে ঝুপড়িতে চরম ঝুঁকিতে বসবাস করছে। কবে নাগাদ তাদেরকে পুনর্বাসন করা হবে তা সরকারের সংশ্লিষ্ট মহল জানে না। উল্টো যাদেরকে পুনর্বাসিত করা হয়েছিল তারও দুই তৃতীয়াংশ ঘর বাস অযোগ্য হয়ে গেছে। নতুন করে বেড়েছে গৃহহারা পরিবার।
সুপার সাইক্লোন সিডরের ভয়াল তান্ডবের কথা মানুষ আজও ভোলেনি । ভয়াল ওই তান্ডবে কলাপাড়ায় ৯৪ জন মানুষের প্রানহানি ঘটে । আজও নিখোঁজের রয়েছে সাত জেলে ও এক শিশু। আহত হয়েছে ১৬৭৮জন । এর মধ্যে ৯৬ জন প্রতিবন্ধী হয়ে গেছে। বিধবা হয়েছে ১২ গৃহবধু। এতিম হয়েছে ২০ শিশু । সম্পুর্ণভাবে ঘর বিধ্বস্ত হয়েছে ১২হাজার নয় শ’ পরিবার। আংশিক বিধ্বস্ত হয় ১৪ হাজার নয় শ’ ২৫ পরিবার। তিন হাজার দুই শ’ ২৫জেলে পরিবার ক্ষতিগ্রস্থ হয়। শতকরা ৯০ ভাগ পরিবার ক্ষতির শিকার প্রকৃতির থাবায়। এর মধ্যে ৫৪৭৩ টি পরিবারকে ঘর ণির্মাণ করে দেয়া হয়েছে । ৫৪০ পরিবারের মধ্যে দেয়ার জন্য ব্যারাক হাউস নির্মাণ করে দেয়া হয়েছে চার বছর আগে। কিন্তু এসব ব্যারাকের অন্তত ২০০ কক্ষে লোকজন থাকছে না। ব্যারাক হাউসের চাল বেড়া পর্যন্ত চুরি হয়ে গেছে। সম্পুর্ণ বিধ্বস্ত কয়েক হারজার পরিবার আজ পর্যন্ত ঘর পায়নি । আদৌ আর কখনও পাবে কিনা তা খোদ সরকারের মহল থেকে নিশ্চিত করতে পারেনি। বসতঘর সম্পূর্ণ বিধ্বস্ত হওয়া ১২হাজার পাঁচ শ’ ১৬ পরিবারের প্রত্যেককে পাঁচ হাজার টাকা করে ক্ষতিপুরণ দেয়া হয়েছে।

এছাড়া তিন হাজার, আড়াই হাজার, দুই হাজার এবং এক হাজার টাকা করে আরও ছয় হাজার সাত শ’ পরিবারকে গৃহ নির্মাণে সহায়তা দেয়া হয়েছে । গৃহ ণির্মাণ সামগ্রী দিয়ে সহায়তা দেয়া হয়েছে আরও অন্তত সাত হাজার পরিবারকে। খাদ্য সহায়তা দেয়া হয়েছে অধিকাংশ পরিবারকে। এখবর সরকারের বিভিন্ন সুত্রের । তারপরও সম্পূর্ণ এবং আংশিক বিধ্বস্ত বহু পরিবার এখনওমানবেতর জীবন-যাপন করছে। এরা তাবুর নিচে, কেউবা ডেড়া তুলে সন্তান পরিজন নিয়ে খুব কষ্টে দিনাতিপাত করছে। এছাড়া সিডরে পেশা হারানো অন্তত অর্ধশত ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী এখনও পেশায় ফিরে যেতে পারেনি। সরকারি ভাবে ঝুঁকি হ্্রাস কর্মসূচির মাধ্যমে ৫০০ ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীকে পাঁচ-দশ হাজার টাকা করে সুদমুক্ত লোন দেয়া হয়েছে, কিন্তু প্রকৃত ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীর ভাগ্যে তা জোটেনি

কলাপাড়া উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, আশ্রায়ন প্রকল্প -২ এর আওতায় জমি আছে ঘর নেই এদের ঘর দেয়ার কার্যক্রম এবছর শুরু হয়েছে। প্রধানন্ত্রী শেখ হাসিনার বিশেষ উদ্যোগে এ পুনর্বাসন প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। ইতোমধ্যে ১২০ পরিবারকে ঘরের মালামাল হস্তান্তর করে ঘর তোলার কাজও শেষের পথে। এছাড়াও এবছরই দুইটি আবাস প্রকল্পের মেরামত কাজ শেষ করে বাস উপযোগিতা নিশ্চিত করা হবে।

Spread the love




সর্বশেষ সংবাদ

সাম্প্রতিক সংবাদসমূহ

সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদকঃ দেলওয়ার হোসেন
নির্বাহী সম্পাদকঃ এস এম মোশারফ হোসেন মিন্টু
বার্তা সম্পাদকঃ
 
মোবাইল- 01711102472
 
Design & Developed by
  কলাপাড়ায় বিদ্যুত কেন্দ্র নির্মানকারী সংস্থার কর্মকর্তাদের উপর হামলা,অর্ধশত গ্রামবাসীর বিরুদ্ধে মামলা।।   “পায়রা বন্দরের মাধ্যমে পুরো বাংলাদেশকে আমরা পরিবহন সেবা দিতে চাই” নৌ-পরিবহন প্রতিমন্ত্রী   পায়রা তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রে মঙ্গলবার ৪টি আনলোডার মেশিন যুক্ত হয়েছে।। ৬৩ ভাগ কাজ সম্পন্ন   ঘুরে দাঁড়িয়েছে বন্দর   কলাপাড়ায় জমি অধিগ্রহন না করার দাবিতে কৃষক ও মুক্তিযোদ্ধাদের সংবাদ সম্মেলন   ‘পায়রা সমুদ্র বন্দর বানিজ্য সম্ভাবনার নতুন দরজা”-পটুয়াখালী চেম্বার অব কমার্সের শ্লোগান   পায়রা বন্দরে ২০২১ সালের মধ্যে বাস্তবায়ন হবে ২২ হাজার কোটির টাকার মধ্য মেয়াদী প্রকল্প   নতুন পায়রা সমুদ্রবন্দর বাংলাদেশের জন্য কতটা গুরুত্বপূর্ণ