[bangla_day] [english_date] [bangla_date]
ই-পেপার   [bangla_day] [english_date]

ফটিকছড়ির ৮১ প্রাথমিক বিদ্যালযে প্রধান শিক্ষক নেই
প্রকাশ: 9 November, 2018, 8:27 am |
অনলাইন সংস্করণ

ফটিকছড়ির ৮১ প্রাথমিক বিদ্যালযে প্রধান শিক্ষক নেই

চট্রগ্রাম প্রতিনিধি।্

চট্টগ্রাম জেলার ফটিকছড়িতে প্রধান শিক্ষক ছাড়াই চলছে ৮১টি প্রাথমিক বিদ্যালয়। এতে বিদ্যালয়ের পাঠদান ব্যাহতের পাশাপাশি প্রশাসনিক কর্মকাণ্ডে নানা সমস্যা হচ্ছে। অতিরিক্ত ক্লাস নিতে গিয়ে হিমশিম খেতে হচ্ছে বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকদের। মানসম্মত শিক্ষাব্যবস্থা নিশ্চিত করতে শূন্যপদগুলো দ্রুত পূরণ করার দাবি জানিয়েছেন অভিভাবক, শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা।

উপজেলা শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার ১৭টি ইউনিয়ন, ২টি পৌরসভায় ২২৯টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মধ্যে ৮১টিতে প্রধান শিক্ষক নেই। কোন বিদ্যালয়ে ৪/৫ বছর, কোন কোন বিদ্যালয়ে ৫/৭ বছর ধরে প্রধান শিক্ষক না থাকার কারণে বিদ্যালয়গুলোতে শিক্ষা কার্যক্রম চরমভাবে ব্যাহত হচ্ছে। ৮১টি বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক না থাকলেও এর মধ্যে ১৮টি বিদ্যালয়ে মামলার জটিলার কারণে শূন্য পদে প্রধান শিক্ষক নিয়োগ দেয়া সম্ভব হচ্ছে না বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। দীর্ঘদিন ধরে স্কুলগুলোতে প্রধান শিক্ষক না থাকায় সহকারী শিক্ষকরা পাঠদান দিয়ে থাকলেও দাপ্তরিক কাজ পরিচালনা করতে হিমশিম খেতে হচ্ছে। উত্তর ফটিকছড়ির একাধিক শিক্ষকের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোর শিক্ষা কার্যক্রম একেবারেই বেহাল। স্কুলগুলোতে মাত্র দুই থেকে তিনজন শিক্ষক দিয়ে কোন রকম চলছে পাঠদান কার্যক্রম। দুর্গম হওয়ায় ওই ইউনিয়নগুলোর স্কুলে যোগদান করতে চান না কোন শিক্ষক। আবার যোগদান করলেও কিছুদিন পরে শিক্ষা অফিসে তদবির করে বদলি হয়ে যান। কেউ কেউ আবার খোঁজেন ডেপুটেশনে অন্যত্র যাওয়ার পথ।শিক্ষক সঙ্কটে খণ্ডকালীন শিক্ষক দিয়ে ক্লাস চালানো হয় বলে জানা যায়।

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আজিমেল কদর বলেন, উপজেলার ৮১টি বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষকের শূন্য পদের তালিকা করে উধর্তন কর্তৃপক্ষকে পাঠানো হয়েছে। ২০১৩ খ্রিস্টাব্দে ২৬ হাজার স্কুল জাতীয়করণ করা হয় তখন প্রধান শিক্ষকের দায়িত্বে থাকা কিছু প্রধান শিক্ষকের যোগ্যতা থাকায় তারা প্রধান শিক্ষকের স্কেল পেয়েছে। কিছু প্রধান শিক্ষকের যোগ্যতা ছিল না বিধায় প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব পালন করে তাদের মধ্যে থেকে ১৮ জন রিট মামলা করেন। এই মামলা জটিলতায় আইনগতভাবে ১৮টি বিদ্যালয়ে শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হচ্ছে না, অবশিষ্ট বিদ্যালয়গুলোতে দ্রুত শিক্ষক নিয়োগ বা পদোন্নতি হতে পারে, হবে বলে জানান তিনি।

Spread the love




এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

সাম্প্রতিক সংবাদসমূহ

সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদকঃ দেলওয়ার হোসেন
নির্বাহী সম্পাদকঃ এস এম মোশারফ হোসেন মিন্টু
বার্তা সম্পাদকঃ
 
মোবাইল- 01711102472
 
Design & Developed by
  কলাপাড়ায় বিদ্যুত কেন্দ্র নির্মানকারী সংস্থার কর্মকর্তাদের উপর হামলা,অর্ধশত গ্রামবাসীর বিরুদ্ধে মামলা।।   “পায়রা বন্দরের মাধ্যমে পুরো বাংলাদেশকে আমরা পরিবহন সেবা দিতে চাই” নৌ-পরিবহন প্রতিমন্ত্রী   পায়রা তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রে মঙ্গলবার ৪টি আনলোডার মেশিন যুক্ত হয়েছে।। ৬৩ ভাগ কাজ সম্পন্ন   ঘুরে দাঁড়িয়েছে বন্দর   কলাপাড়ায় জমি অধিগ্রহন না করার দাবিতে কৃষক ও মুক্তিযোদ্ধাদের সংবাদ সম্মেলন   ‘পায়রা সমুদ্র বন্দর বানিজ্য সম্ভাবনার নতুন দরজা”-পটুয়াখালী চেম্বার অব কমার্সের শ্লোগান   পায়রা বন্দরে ২০২১ সালের মধ্যে বাস্তবায়ন হবে ২২ হাজার কোটির টাকার মধ্য মেয়াদী প্রকল্প   নতুন পায়রা সমুদ্রবন্দর বাংলাদেশের জন্য কতটা গুরুত্বপূর্ণ