[bangla_day] [english_date] [bangla_date]
ই-পেপার   [bangla_day] [english_date]

দাম না পেয়ে ক্ষেতে মুলা রেখেই জমি চাষ !
প্রকাশ: 20 November, 2018, 4:47 am |
অনলাইন সংস্করণ

দাম না পেয়ে ক্ষেতে মুলা রেখেই জমি চাষ  !

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি।।

শীতকালীন সবজি মুলার আগাম চাষ করে বড় লাভের আশা করলেও ঠাকুরগাঁওয়ের শত শত কৃষকের সেই আশার গুড়ে বালি পড়েছে। দাম না পাওয়ার হতাশায় ক্ষেতে মুলা রেখেই জমি চাষ দিচ্ছেন তারা। তবে কৃষিবিদরা বলছেন, এই ঘটনাটি কৃষকদের জন্য ‘মন্দের ভালো’ হয়েছে। পরবর্তী ফসল ধানের জন্য সেচ ও সারের খরচ কিছুটা কমবে তাদের।

স্থানীয় কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের তথ্য অনুসারে, এ বছর জেলায় সবজি আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয় ৭ হাজার ২৫০ হেক্টর জমিতে। ইতোমধ্যে ৩ হাজার ১৫০ হেক্টর জমিতে সবজির চাষ হয়েছে। এর মধ্যে এককভাবে কেবল মুলারই আগাম চাষ হয়েছে কমপক্ষে ৫০০ হেক্টর জমিতে। অনুকূল আবহাওয়া পেয়ে ফলনও ভালো হয়েছে। এই অবস্থায় একই সঙ্গে বেশিরভাগ চাষির মুলা বাজারে আসায় দাম কম পাচ্ছেন তারা। তা ইমুলার স্থানীয় বাজারদরের পরিপ্রেক্ষিতে সেগুলো বিক্রি করার চেয়ে জমিতে রেখেই চাষ দিচ্ছেন কৃষকরা।

রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন এলাকার খুচরা বাজারে এখনো ২০ টাকার কমে বিক্রি হচ্ছে না প্রতিকেজি মুলা। কিন্তু ঠাকুরগাঁওয়ে চাষিদের মুলার দাম উঠছে প্রতি কেজি দৃই থেকে তিন টাকা।

প্রায় সপ্তাহখানেক ধরেই দেখা যাচ্ছে, সদরসহ বিভিন্ন উপজেলার মুলা চাষিরা ফসল না তুলেই জমিতে হাল চাষ দিচ্ছেন। অন্য ফসলের উৎপাদনের জন্য করছেন জমি তৈরি। কৃষকরা জানান, মৌসুম শুরু হলেও তারা মুলার ন্যায্য দাম পাচ্ছেন না। উৎপাদন খরচের তিন ভাগের একভাগও মিলছে না। মুলা উত্তোলন ও বাজারজাত করতে যে খরচ হবে সে টাকাও উঠছে না। তাই বাধ্য হয়ে ক্ষেতে মুলা রেখেই অন্য ফসল উৎপাদনের জন্য জমি তৈরি করছেন।

সদর উপজেলার মরিচপাড়া এলাকার মুলা চাষি শাহীন আলী জানান, তিনি এক একর জমিতে মুলার চাষ করেছিলেন। ফলনও ভালো হয়েছিল। প্রথম দিকে দামও পাচ্ছিলেন ভালো। কিন্তু সপ্তাহখানেক ধরে বাজারে এক টাকা বা দুই টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। তিনি বলেন, এক বস্তা বাছাই করা মুলার দাম এখন ১০০ টাকা। তাই আর মুলা তুলছি না, মুলাসহ জমিতে হাল দিচ্ছি।

একই কথা বলেন গিলাবাড়ী এলাকার মুলা চাষি নাসিমুল হক। তিনি বলেন, চার একর জমিতে মূলা চাষ করেছি, কিন্তু বিক্রি করতে না পেরে মূলাসহ জমিতে হাল দিচ্ছি। এখন ওই জমিতে আলু চাষ করব।

এ বিষয়ে ঠাকুরগাঁও কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপপরিচালক কৃষিবিদ আফতাব হোসেন বলেন, কৃষকদের আমরা যে পরিকল্পনা দিয়ে ছিলাম সে অনুসারে তারা সবজি চাষ করেনি। অনেকেই একই ধরনের ফসল চাষ করেছেন। আবার বাজারেও তুলেছেন একই সঙ্গে। ফলে বাজারে সরবরাহ বেড়ে যাওয়ায় চাহিদা কমে গেছে অনেক, যার ফলে দামও কমে গেছে স্বাভাবিক নিয়মে। মুলার স্থানীয় বাজারদরের এই অবস্থায় সেগুলো বিক্রি করার চেয়ে জমিতে রেখেই চাষ দিয়ে বরং কৃষকরা সঠিক কাজ করেছেন বলে মনে করেন তিনি। তার মতে, এই মুলা জমির প্রাকৃতিক খাবার হিসেবে কাজ করবে। এ ছাড়া মুলা ডিকম্পোস্ট হতে প্রায় ৩০ দিনের মতো সময় লাগে। সে সময়টাতে জমির আর্দ্রতা ঠিক রাখতেও এটি সহায়তা করবে। বাড়তি সেচের প্রয়োজন হবে না।

কৃষিবিদ আফতাব হোসেনের মতোই বলেছেন বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের জ্যেষ্ঠ বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. নাজিম উদ্দীন। তিনি বলেন, বিষয়টি কৃষকের জমির জন্য মন্দের ভালো হয়েছে। ওইসব জমিতে পরে আলু বা ধানের ভালো ফলন পাবেন কৃষকরা। তবে মুলা চাষের জন্য কৃষকের যে ক্ষতি হয়েছে তা যেন আগামীতে না হয় সে জন্য তাদের সচেতন করতে আরো বেশি পদক্ষেপ নেওয়া দরকার বলে মনে করেন তিনি।

Spread the love




সর্বশেষ সংবাদ

সাম্প্রতিক সংবাদসমূহ

সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদকঃ দেলওয়ার হোসেন
নির্বাহী সম্পাদকঃ এস এম মোশারফ হোসেন মিন্টু
বার্তা সম্পাদকঃ
 
মোবাইল- 01711102472
 
Design & Developed by
  কলাপাড়ায় বিদ্যুত কেন্দ্র নির্মানকারী সংস্থার কর্মকর্তাদের উপর হামলা,অর্ধশত গ্রামবাসীর বিরুদ্ধে মামলা।।   “পায়রা বন্দরের মাধ্যমে পুরো বাংলাদেশকে আমরা পরিবহন সেবা দিতে চাই” নৌ-পরিবহন প্রতিমন্ত্রী   পায়রা তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রে মঙ্গলবার ৪টি আনলোডার মেশিন যুক্ত হয়েছে।। ৬৩ ভাগ কাজ সম্পন্ন   ঘুরে দাঁড়িয়েছে বন্দর   কলাপাড়ায় জমি অধিগ্রহন না করার দাবিতে কৃষক ও মুক্তিযোদ্ধাদের সংবাদ সম্মেলন   ‘পায়রা সমুদ্র বন্দর বানিজ্য সম্ভাবনার নতুন দরজা”-পটুয়াখালী চেম্বার অব কমার্সের শ্লোগান   পায়রা বন্দরে ২০২১ সালের মধ্যে বাস্তবায়ন হবে ২২ হাজার কোটির টাকার মধ্য মেয়াদী প্রকল্প   নতুন পায়রা সমুদ্রবন্দর বাংলাদেশের জন্য কতটা গুরুত্বপূর্ণ