[bangla_day] [english_date] [bangla_date]
ই-পেপার   [bangla_day] [english_date]

কাল সিডর ট্রাজেডির ১১ বছর, নিখোঁজদের এখনও খুঁজছে স্বজনরা
প্রকাশ: 14 November, 2018, 12:00 pm |
অনলাইন সংস্করণ

কাল সিডর ট্রাজেডির ১১ বছর, নিখোঁজদের এখনও খুঁজছে স্বজনরা

মিলন কর্মকার রাজু।।
কাল সেই ১৫ নভেম্বর (বৃহস্পতিবার)। সুপার সাইক্লোন সিডরের তান্ডবে বহু পরিবারের অতি আপনজন হারানো এবং কৃষকের জমির ফসলসহ মূল্যবান সম্পদ, ছিন্নমূল মানুষের সামান্য আশ্রয়স্থল ও আয়ের উৎস্য হারানোর বেদনাদায়ক মর্মাঘাতী দিন।
২০০৭ সালের এই দিনে রাত পৌনে দশটায় ২৫০ কিলোমিটার বেগে বয়ে যাওয়া ঝড়োহাওয়া এবং ১০ থেকে ১৫ ফুট উচ্চ জলোচ্ছাসের তোড়ে মূহুর্তে উপক‚লী এলাকার কলাপাড়া উপজেলার ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়। বিধ্বস্ত হয় অসংখ্য ঘর-বাড়ি। বিচ্ছিন্ন হয় সড়ক, বিদ্যুৎ ও টেলিযোগাযোগ ব্যবস্থা। কৃষি ও মৎস্য সম্পদেরও ক্ষতি হয়। মারা যায় অনেক গবাদি পশু। সেই দিনটির কথা মনে পড়লে এখনও আৎকে ওঠে কলাপাড়ার মানুষ। কোনদিন ওই স্মৃতির কথা ভুলতে পারবেনা এখানকার মানুষগুলো । এখনও এ উপজেলার প্রত্যন্ত জনপদ ঘুরলে স্বজন হারা ও ক্ষতিগ্রস্থ মানুষের বিলাপ শোনা যায়।
সরকারী ও বে-সরকারী সংস্থার পরিসংখ্যান থেকে জানা গেছে, সিডরে কলাপাড়া উপজেলায় ৯৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছে এক হাজার ৭৮ জন। এখনও নিখোঁজ রয়েছে সাত জেলে । এরা হচ্ছে- লালুয়া ইউনিয়নের এগানংহাওলা গ্রামের আক্কাস মীর (৫০), ফরিদ তালুকদার (২৫), নুরুল ইসলাম (২২), জলিল গাজী (২৪)। কলাউপাড়া গ্রামের ইউনুচ হাওলাদার (৭০), জসিম হাওালাদার (২৩) এবং ধঞ্জুপাড়া গ্রামের ইলিয়াস (২০)। এছাড়া গঙ্গামতি একলাকার মজিবুর রহামানের পাঁচ বছরের শিশু মালেক গঙ্গামতিচর সাইক্লোন শেল্টারে যাওয়া সময় জলোচ্ছাসের পানির সাথে সমুদ্রে নিখোঁজ হয়। এর মধ্যে প্রতিবন্ধী হয়েছে ৯৬ জন। বিধবা হয়েছে ১২। এতিম হয়েছে ২০টি শিশু। এই উপজেলার মৃত গবাদিপশুর সংখ্যা চার হাজার নয়শত ৪৪টি। ক্ষতি হয়েছে পাঁচশত ৫৩টি নৌযানের। ১২ হাজার নয়শ ৭০টি পরিবার হয়েছে সম্পূর্ণ ভাবে ক্ষতিগ্রস্থ। আংশিক ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের সংখ্যা ১৪ হাজার নয়শ ২৫টি।
সিডরের ১১ বছর পার হলেও ট্রলার ডুবিতে নিখোঁজ কলাপাড়ার লালুয়া ইউনিয়নের আক্কাস মীরের পরিবারের লোকজন এখনও খুঁজে ফিরছে তাদের বাবাকে। তার ছয় সন্তানের মধ্যে ছোট দু’ছেলে মেয়ে চাঁদনী ও আউয়াল এখনও বাবার জন্য অপেক্ষা করছে। তারা জানায়, বাবা সাগরে গেছে ইলিশ মাছ ধরতে। আমাগো লাই¹া নতুন জামা কাপড় ও চকলেট আনবে বলে গেছে। শৈশবের এর স্মৃতি এখন তাদের কাঁদায়। শত চেষ্টা করেও তারা বাবার মুখটি মনে করতে পারছেনা। তাদের মন থেকে বাবার স্নৃতি মুছে গেলেও অন্য চার সন্তান এখনও বাবাকে খুঁজে ছিরছে । তাদের মতো লালুয়া ইউনিয়নে সিডরে সাগরে মাছ ধরতে গিয়ে নিঁখোজ সাত পরিবারে চলছে শুধুই হারানো স্বজনকে খুঁজে পাবার আর্তনাদ। তারা এখনও বিশ্বাস করে একদিন সবাই ফিরে আসবে।

Spread the love




সর্বশেষ সংবাদ

সাম্প্রতিক সংবাদসমূহ

সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদকঃ দেলওয়ার হোসেন
নির্বাহী সম্পাদকঃ এস এম মোশারফ হোসেন মিন্টু
বার্তা সম্পাদকঃ
 
মোবাইল- 01711102472
 
Design & Developed by
  কলাপাড়ায় বিদ্যুত কেন্দ্র নির্মানকারী সংস্থার কর্মকর্তাদের উপর হামলা,অর্ধশত গ্রামবাসীর বিরুদ্ধে মামলা।।   “পায়রা বন্দরের মাধ্যমে পুরো বাংলাদেশকে আমরা পরিবহন সেবা দিতে চাই” নৌ-পরিবহন প্রতিমন্ত্রী   পায়রা তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রে মঙ্গলবার ৪টি আনলোডার মেশিন যুক্ত হয়েছে।। ৬৩ ভাগ কাজ সম্পন্ন   ঘুরে দাঁড়িয়েছে বন্দর   কলাপাড়ায় জমি অধিগ্রহন না করার দাবিতে কৃষক ও মুক্তিযোদ্ধাদের সংবাদ সম্মেলন   ‘পায়রা সমুদ্র বন্দর বানিজ্য সম্ভাবনার নতুন দরজা”-পটুয়াখালী চেম্বার অব কমার্সের শ্লোগান   পায়রা বন্দরে ২০২১ সালের মধ্যে বাস্তবায়ন হবে ২২ হাজার কোটির টাকার মধ্য মেয়াদী প্রকল্প   নতুন পায়রা সমুদ্রবন্দর বাংলাদেশের জন্য কতটা গুরুত্বপূর্ণ